অবশে’ষে বৃ’দ্ধকে নি’র্যাতনের ঘটনায় মা’মলা, আ’টক ৩

এলাকার খোলা মাঠে নিয়ে বৃ’দ্ধকে বি’বস্ত্র করে অ’মানবিক নি’র্যাতনের ঘটনায় অবশেষে মা’মলা হয়েছে।

নি’র্যাতনের শি’কার কক্সবাজারের চকরিয়ার ঢেমুশিয়া ইউনিয়নের ছয়কুড়িটিক্কা পাড়ার নুরুল

আলমের ছেলে আশরাফ হোসাইন বা’দী হয়ে চকরিয়া থানায় মা’মলাটি দা’য়ের করেছেন।

 

নি’র্যাতনে সম্পৃক্ততা পাওয়ায় তিনজনকে আ’টকও করেছে পুলিশ। মা’মলায় আ’সামি করা হয়েছে,

ওই এলাকার মৃ’ত মনির উল্লাহর ছেলে বদিউল আলম (৫৫), আনছুর আলম (৩৫), শাহ আলম (৫২),

শাহ আলমের স্ত্রী আরজ খাতুন (৪৮), বদিউল আলমের ছেলে মিজানুর রহমান (২৮),

 

আবদুল জাব্বারের ছেলে রিয়াজ উদ্দিন (৩২),  জয়নাল আবেদিন (৩০) এবং মনজুর আলমের ছেলে

মো. রুবেল (২৮)। এছাড়া এ ঘটনায় আ’টকরা হলেন, মা’মলার প্রধান আ’সামি বদিউল আলমের ছেলে

মো. ফারুক (২২), ৪ নম্বর আ’সামি আরজ খাতুনের মেয়ে জামাই বেলাল হোসেন (২৪) ও ৮ নম্বর

 

আ’সামি মো. রুবেলের ভগ্নিপতি কায়সার (২০)।  তারা নি’র্যাতনকারী আনছুর আলমের সহযোগিতাকারী

হিসেবে তথ্য আসায় তাদের আ’টক করা হয়। মূল অ’ভিযুক্ত ৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি

আনছুর আলমসহ অন্যরা আত্মগো’পনে রয়েছেন। তাদের ধরতে পুলিশি তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে

 

বলে উল্লেখ করেছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসাইন।

মঙ্গলবার ভাইরাল হওয়া ভিডিও চিত্রে দেখা গেছে, বৃ’দ্ধ নুরুল আলমের লুঙ্গি ও গেঞ্জি টেনে

ছিঁড়ে ফেলছে যুবলীগ নেতা আনছুর আলম। এ সময় তাকে থা’প্পড়ও মা’রেন নি’র্যাতনকারী। ভিডিও

 

চিত্রটি ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর আইন-শৃংখলা বাহিনীসহ সবার নজরে আসে।

তবে ঘটনাটি ঘটে গত ২৪ মে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজে’লার ঢেমুশিয়া ইউনিয়নের

ছয়কুড়িটিক্কা পাড়ায়। এ নি’র্যাতনের শি’কার নুরুল আলম (৭২) চকরিয়ার ঢেমুশিয়া ইউনিয়নের

৪ নম্বর ওয়ার্ডের ছয়কুড়িটিক্কা পাড়ার মৃ’ত আলী মিয়ার ছেলে।

 

এ ঘটনায় নি’র্যাতনের শি’কার বৃ’দ্ধ নুরুল আলমের ছেলে আশরাফ হোসাইন ৩১ মে রাতে আট

জনকে আ’সামি করে চকরিয়া থানায় একটি এজাহার দা’য়ের করেন। কিন্তু দু’দিনেও কোনো ব্যবস্থা

নেয়নি থানা পুলিশ। পরে ঘটনাটির ভিডিও চিত্র ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর

 

ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে মা’মলাটি নথিভুক্ত করে অ’ভিযানে নামে চকরিয়া থানার পুলিশ।

এজাহারে বা’দী আশরাফ হোসাইন দাবি করেছেন, গত ২৪ মে ঈদের কেনাকা’টা শেষ করে

বৃ’দ্ধ নুরুল আলম ঢেমুশিয়া স্টেশন থেকে ইজিবাইকে বাড়ি ফিরছিলেন।

পথে ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি আনছুর আলমের লালিত স’ন্ত্রাসীদল তাকে গাড়ি থেকে জো’র করে

 

নামিয়ে একটি খোলা মাঠে নিয়ে যায়। সেখানে বৃ’দ্ধের লুঙ্গি ও গেঞ্জি টেনে হিঁচড়ে ছিঁড়ে ফে’লে।

এক পর্যায়ে তাকে উ’লঙ্গ করে চড়-থা’প্পড় মা’রতে থাকে তারা। এ সময় ওই বৃ’দ্ধকে অশ্রাব্য ভাষায়

গালিগালাজ করতে থাকে আনছুর আলম। এ সময় দৃশ্যটি ঘটনাস্থলে উপস্থিত কয়েকজন যুবক মোবাইল

ফোনে ধারণ করছিলেন।

 

এজাহারে আরও দাবি করা হয়, ঘটনাটি আশপাশের লোকজন প্রত্যক্ষ করলেও স’ন্ত্রাসী আনছুর

আলমের ভ’য়ে কেউ বৃ’দ্ধ নুরুল আলমকে রক্ষায় এগিয়ে আসেনি। পরে খবর পেয়ে বৃ’দ্ধের ছোট ছেলে

অটোরিকশা চালক সালাহ উদ্দিন স্বজনদের নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাকে উ’দ্ধার করেন এবং স্থানীয়

এক চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান।

 

বৃ’দ্ধ নুরুল আলমকে মা’রধর করার সময় তার সঙ্গে মোবাইল ফোনসেট ও নগদ টাকা হা’মলাকারী আনছুর

ছি’নিয়ে নিয়েছে বলে এজাহারে দাবি করেন আশরাফ হোসাইন। আশরাফ বলেন, তার বাবাকে অ’মানবিকভাবে

মা’রধর করেছে যুবলীগ নেতা নামধারী স’’ন্ত্রাসী আনছুর আলম। ক্ষমতাসীন দলের সহযোগী সংগঠনের নেতা

হওয়ায় তার অ’পকর্মের বি’রুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না।

 

ঢেমুশিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আলম জিকু বলেন, তুচ্ছ ঘটনার জেরে বৃ’দ্ধ নুরুল আলমকে এলাকার

চিহ্নিত কিছু যুবক মা’রধর করেছে। বি’ষয়টি জানার পর হা’মলাকারীদের বি’রুদ্ধে থানায় মা’মলা করার পরামর্শ

দিয়েছিলাম। বৃ’দ্ধকে মা’রধর করার ব্যাপারে চকরিয়া উপজে’লা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক কাউছার উদ্দিন

কচির বলেন, এটি অত্যন্ত নিন্দনীয় ও অ’মানবিক ঘটনা।

 

ভিডিও চিত্রটি দেখার পরপরই ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে তার বি’রুদ্ধে

সাংগঠনিক শা’স্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অ’ভিযুক্তকে সংগঠনের প্রাথমিক সদস্য

পদসহ স্থায়ীভাবে ব’হিষ্কারে নির্দেশনা দিয়েছেন জে’লা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক শহিদুল হক সোহেল।

 

তিনি আরো বলেন, আনছুর আলম সংগঠনে অনুপ্রবেশকারী। তার অ’পকর্ম সম্পর্কে সংগঠনের

দায়িত্বশীলরা আগে অবহিত ছিলেন না। ক্ষমতা পাওয়ার পর সে ডা’কাতি, জ’মি জব’রদ’খল ও চাঁ’দাবাজীসহ

নানা অ’পর্ক’মে জড়িয়ে পড়েছে। তার বি’রুদ্ধে ডা’কাতিসহ নানা অ’ভিযোগে একাধিক মা’মলা হয়েছে।

 

এসব অ’ভিযোগের ব্যাপারে জানতে অ’ভিযুক্ত আনছুর আলমের মুঠোফোনে একাধিকবার

যোগাযোগ করেও তা বন্ধ পাওয়ায় কথা বলা সম্ভব হয়নি। নানা ‘অপ’র্ক’মে জড়িয়ে পড়েছে। তার

বি’রুদ্ধে ডা’কা’তিসহ নানা অ’ভিযোগে একাধিক মা’মলা হয়েছে।

 

Check Also

নিঃস্ব হওয়ার পথে ভারত!

জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফ বলছে, ভারতে প্রতি সেকেন্ডে চারজন করে নতুন করো’না রোগী শনা’ক্ত হচ্ছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *