‘ইফতারে মিছরি ভেজানো পানি পানের উপকারিতা জেনে নিন’

মিছরি ভেজানো পানি- সারাদিন রোজা রেখে শরীরকে পুনরায় চাঙ্গা

করতে ইফতারে শরবত ছাড়া যেন চলেই না। সারাদিনের তেষ্টা মেটাতে

শরবতের গ্লাসে চুমুক দিয়ে প্রশান্তি খোঁজা হয়। কিন্তু সব শরবতই কি স্বাস্থ্যকর?

ভাবছেন, ঘরেই তৈরি শরবত আবার অস্বাস্থ্যকর হয় কী করে?

 

শরবতে যে চিনিটুকু ব্যবহার করছেন, তা আমাদের শরীরের জন্য বিশেষ

উপকারী নয়। বরং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ক্ষ’তির কারণ বয়ে আনে।

তাই বলে কি শরবতে গলা ভেজাবেন না? এক্ষেত্রে বিকল্প হিসেবে বেছে নিতে পারেন মিছরির পানি।

ছোটদের মিছরির পানি খাওয়ানো হয়ে থাকে অনেক সময়।

তবে শুধু ছোটরা নয়, বড়রাও মিছরির পানি খেতে পারেন।

গ্রীষ্মপ্রধান দেশে মিছরির পানির অনেক উপকারিতা রয়েছে।

 

রোজা আর গরম যেহেতু একইসঙ্গে, তাই মিছরির পানি আপনাকে

এই সময়ে সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে।

মিছরির পানি যে শুধু খেতে সুস্বাদুই নয়, মিছরির পানিতে শরীর ঠান্ডা হয়।

 

গরমকালে এই পানি পান করা খুবই উপকারী। বাজারে কিনতে

পাওয়া নামী কোম্পানির কার্বোনেটেড কোল্ড ড্রিংক না খেয়ে মিছরির পানি খান।

মিছরির পানি গরমে আপনার শরীর শীতল করবে। মিছরি গুঁড়া করে সেটা

 

পানিতে মিশিয়ে খেলে বেশি উপকার পাওয়া যায়।

শরীরে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ কম থাকলে ক্লান্তি অনুভব হয়।

এদের জন্য মিছরির পানি খুবই ভালো। শরীরে হিমোগ্লোবিন কম

 

থাকলে প্রতিদিন সেহরিতে একগ্লাস করে মিছরির পানি খাওয়া দরকার।

গরমে অনেকের নাক দিয়ে র’ক্ত পড়ে। নাকের ভেকর শুকিয়ে যাওয়ার কারণে

এরকম হয়। এদের জন্যও মিছরির পানি উপকারী।

এছাড়াও আলসারের সমস্যায় কাজে লাগে মিছরি। মুখে আলসার থাকলে

এলাচের সঙ্গে মিছরির গুঁড়া মিশিয়ে তারপর একটু পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি

করে সেটা ঘায়ের ওপর লাগিয়ে রাখলে উপকার পাবেন।

Check Also

নিঃস্ব হওয়ার পথে ভারত!

জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফ বলছে, ভারতে প্রতি সেকেন্ডে চারজন করে নতুন করো’না রোগী শনা’ক্ত হচ্ছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *