কম খরচে যে কেউ রাত কাটাতে পারবেন : সালমা

নিজস্ব অর্থায়নে একটি রিসোর্ট তৈরি করেছেন কণ্ঠশিল্পী সালমা। বর্তমানে এই রিসোর্টের সার্বিক

তত্ত্বাবধানে ময়মনসিংহে অবস্থান করছেন তিনি। সালমা গণমাধ্যমকে বলেন, অনেকদিন ধরেই

 

এমন একটি পরিকল্পনা নিয়ে চিন্তা করেছি। অবশেষে সেটি বাস্তবায়নের কাজও শুরু করেছি।

রিসোর্টটির নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে আছে। তিনি বলেন, কম খরচে যেকেউ রাত কা’টাতে

 

পারবেন।” আশা করছি দ্রুতই বিনোদন পিয়াসীদের জন্য উন্মুক্ত করা যাবে রিসোর্টটি। এই

কাজটির জন্য মাঝে মাঝেই এখানে আসতে হয় আমা’র। এদিকে মৌলিক গানে কণ্ঠ দিয়ে যাচ্ছেন

 

সালমা। অল্প করে হলেও স্টেজের গানেও দর্শকদের মাতাচ্ছেন তিনি। টিভির গানের অনুষ্ঠানগুলোতেও

রয়েছে তার সরব উপস্থিতি। করো’নাকালেও নানাবিধ সামাজিক কর্মকা’ণ্ডে ব্যাপক উপস্থিতি দেখা গেছে

 

কণ্ঠশিল্পী সালমা’র। তার প্রতিষ্ঠিত সাফিয়া ফাউন্ডেশনের হয়ে তিনি সাহায্য করেছেন দরিদ্র মানুষদের।

আরো পড়ুন: “কোভিড-১৯ সংক্রমণ আর মৃত্যুর ঊর্ধ্বগতি রুখতে গত সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে

 

সারাদেশে শুরু হয়েছে লকডাউন। লকডাউন চলাকালে জরুরি কাজের জন্য সীমিত পরিসরে অফিস

খোলা রয়েছে।” এছাড়া বুধবার (৭ এপ্রিল) থেকে খুলে দেয়া হয়েছে মহানগরীর মধ্যে সকল গণপরিবহন।

 

এরইমধ্যে পরবর্তী লকডাউনের বিষয়ে আজ বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) সিদ্ধান্ত হবে বলে জানান

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। সোমবার (৫ এপ্রিল) সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার

 

সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী ও সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ

বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠকে যোগ দেন। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ

 

তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। সারা দেশে চলমান লকডাউনের মেয়াদ

হবে কি না- জানতে চাইলে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, দেখি আমরা সাত দিন পর কী অবস্থা

 

হয়। বৃহস্পতিবার আমরা রিভিউ করব ইনশাআল্লাহ। মানুষকে তো কো-অপারেট করতে হবে। আপনারা

তো বলছেন। সবাই যদি একটু মাস্ক পরে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে, তবে তো অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।

 

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় সোমবার (৫ এপ্রিল) সকাল

৬টা থেকে আগামী সাত দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে। এ দফায় আগামী ১১ এপ্রিল রাত ১২টা পর্যন্ত

 

থাকবে এই লকডাউন।রোববার (৪ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি করা

হয়। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সোমবার (৫ এপ্রিল) ভোর ৬টা থেকে থেকে আগামী রোববার (১১ এপ্রিল) রাত

 

১২টা পর্যন্ত জরুরি সেবা ছাড়া সব বন্ধ থাকবে। এর আগে গত বছরের ৮ মার্চ দেশে যখন প্রথম করোনা

রোগী শনাক্ত হয় তখনই নড়েচড়ে বসে সরকার। এরপর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর খবরের পর করোনা

 

পরিস্থিতি মোকাবিলায় দ্রুতই সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। গত বছরের ২৬ মার্চ থেকে শুরু হওয়া সেই

ছুটি ৩১ মে পর্যন্ত স্থায়ী ছিল। এক বছর পর সংক্রমণ মোকাবিলায় আবারও একই ধরনের সিদ্ধান্ত নিল

সরকার। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চূড়ান্ত পদক্ষেপ হিসেবে দেশজুড়ে সোমবার সকাল ৬টা থেকে এক

সপ্তাহের জন্য শুরু হয় লকডাউন।

 

 

Check Also

উইঘু হ’ত্যাকা’ণ্ড: চীনের পক্ষে নরম সুর নিউজিল্যান্ডের

চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের উইঘুরদের ওপর যে নি’র্যা’তন চালানো হচ্ছে বলে আন্তর্জাতিক মহলে দাবি করা হচ্ছে, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *