করোনা আ’ক্রা’ন্ত ব্য্যক্তির চোখ ওঠায় করণীয়

চোখ ওঠেনি এমন কাউকে কি পাওয়া যাবে ? চোখ উঠলে চোখ লাল হয়ে যায়,

কিছুটা ব্যথা ও খচখচ ভাব থাকে। এর সঙ্গে থাকে চোখ দিয়ে পানি পড়ার সমস্যা।

চোখ ওঠা হতে পারে ব্যাকটেরিয়া দিয়ে, এ ছাড়া ভাই’রাস আক্র’মণের কারণেও চোখ

 

ওঠার সমস্যা হতে পারে। বেশির ভাগ সময়ই ভাইরাসে চোখ ওঠে। মাঝে মধ্যে দেশব্যাপী

চোখ ওঠা দেখা দেয়। পরিবারের কেউ বাদ যান না হয়তো সে সময়।

করোনা আ’ক্রা’ন্ত রোগীর লক্ষণগুলোর মধ্যে জ্ব’র, সর্দি, খুশ-খুশে কাশি,

 

গলা ব্যথা, মাথা ব্যথা, শরীর ব্যথার সঙ্গে চোখ ওঠার লক্ষণ অন্যতম। চোখ ওঠা রোগটি ছোঁয়াচে।

ইতিমধ্যে অনেকেই টেলিফোনে জানতে চেয়েছেন চোখ ওঠলেই কি করোনা টেস্ট করাতে হবে?

বর্তমান করোনা দুর্যো’গের সময় জ্বর, সর্দি, কাশির সঙ্গে চোখ ওঠা থাকলে করোনার টেস্ট করা জরুরি।

 

আলাদা থাকতে হবে এবং ১৪ দিন অন্যের সংস্পর্শে না আসাই ভালো। মাস্ক ব্যবহার,

ঘরে থাকা, ঘন ঘন সাবান দিয়ে হাত ধোয়া ও সামাজিক দূরত্ব (২ হাত) বজায় রাখতে হবে।

চোখ লাল, চোখে বেশ ব্যথা ও দৃষ্টি শক্তি কমে যাওয়া- এ সব লক্ষণ আরও তিনটি রোগ গ্লুকোমা,

 

ইউভাইটিস বা চোখের আ’ঘা’তের সঙ্গে চোখ ওঠার ভুল হতে পারে।

এ সব ক্ষেত্রে জরুরি চিকিৎসা নিতে চক্ষু বিশেষজ্ঞের সঙ্গে যোগাযোগ করে পরামর্শ গ্রহণ জরুরি।

করোনাভা’ইরা’স চোখের মাধ্যমে ছড়ায় বলে EYE Shield পরতে হয়।

 

করোনা দীর্ঘদিন চোখে অবস্থান করে, তাই চোখে হাত দেয়া উচিত নয়।

শুধু চোখ ওঠার চিকিৎসার জন্য Antibiotic eye drop ব্যবহারে উপকার পাওয়া যায়।

লেখক: অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ, সাবেক মহাসচিব, বাংলাদেশ মেডিকেল

অ্যাসোসিয়েশন, ঢাকা সাবেক উপ-উপাচার্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, শাহবাগ, ঢাকা

Check Also

নিঃস্ব হওয়ার পথে ভারত!

জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফ বলছে, ভারতে প্রতি সেকেন্ডে চারজন করে নতুন করো’না রোগী শনা’ক্ত হচ্ছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *