কী ঝা’মে’লায় পড়েছিল মেয়েটি, নানা র’হস্য

রাজধানীর গুলশানের ফ্ল্যাট থেকে এক কলেজছাত্রীর ম;র;দে;হ উ;দ্ধা;রের পর নানা আ;লোচনা তৈরি হয়েছে।

তাকে আ;ত্ম;হ;ত্যা;য় প্ররো;চনা দেয়ার অ;ভি;যো;গে দেশের এক শীর্ষ স্থানীয় ব্যবসায়ী গ্রুপের এম;ডি;র বি;রু;দ্ধে

 

মা;ম;লা দা;য়ের করা হয়েছে। মেয়েটির বোন এ মা;লা দায়ের করেছেন। মোসারাত জাহান মুনিয়া নামের মেয়েটি

ঢাকার একটি কলেজে পড়তেন। ২১ বছর বয়সী মেয়েটি গুলশানের ওই ফ্ল্যা;টে একাই থাকতেন। তার বাড়ি কুমিল্লা

 

শহরে। তার পরিবার সেখানেই থাকে। তার লা;শ ‘সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝু;ল;ন্ত অ;বস্থায়’ পাওয়া যায় বলে পু;লি;শ

জা;নিয়েছে। গু;লশান বিভাগের অতিরি;ক্ত উপকমিশনার নাজমুল হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, দেশের একটি

 

শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গে মোসারাত জাহানের সম্প;র্ক ছিল। তিনি

মোসারাতের ফ্ল্যা;টে যাতায়াত করতেন বলেও আমরা জানতে পেরেছি। পু;লি;শ সিসি ক্যামেরার ফুটেজ ও

 

মোসারাতের ব্যবহৃত ডিজিটাল ডি;ভাইসগু;লো জ;ব্দ করেছে। রাতেই গুলশান থা;না;য় মেয়েটির বোন বাদী হয়ে

মা;ম;লা দায়ের করেছেন। মা;ম;লা সূত্রে জানা যায়, মেয়েটির সঙ্গে শীর্ষ ওই ব্যবসায়ীর সম্পর্ক দুই বছরের। ওই

 

ব্যবসায়ী এক বছর মেয়েটিকে বনানীর একটি ফ্ল্যাটে রাখেন। গত মার্চে গুলশানের এই ফ্ল্যাটে ওঠেন মেয়েটি।

ফ্ল্যাটের মাসিক ভাড়া এক লাখ টাকা। অগ্রিম দেয়া হয়েছে দুই লাখ টাকা। এরই মধ্যে দুই মাসের ভাড়া পরিশোধ

 

করা হয়েছে। গত ২৩শে এপ্রিল একটি ইফতার পার্টি হয় এই বাসায়। ওই পার্টির ছবি ফেসবুকে আপলোড করা নিয়ে

মেয়েটির সঙ্গে ওই ব্যবসায়ীর মনোমালিন্য হয়। পরে মেয়েটি তার বোনকে ফোন করে জানান, তিনি ঝা;মে;লা;য়

 

পড়েছেন। এই ফোনের পর কুমিল্লা থেকে সোমবার বিকেলে ঢাকায় আসেন ওই তরুণীর বোন। গুলশানের

ফ্ল্যা;টটির দরজা ভেতর থেকে বন্ধ পান তিনি। পরে দর;জা ভে;ঙে ভেতরে ঢুকে শোবার ঘরে ত;রুণীর ঝু;ল;ন্ত

 

ম;র;দে;হ দেখতে পান। মেয়েটি কীভাবে মা;রা গেলেন অথবা কেন আ;ত্মহ;ত্যা করলেন তা নিয়ে নানা র;হস্য

তৈরি হয়েছে। ওই ব্যবসায়ীর সঙ্গে তার একটি ফোনালাপ সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

 

 

Check Also

মুনিয়ার অতীতের সব জানালেন তার বোন নুসরাত তানিয়া

মুনিয়াদের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা শহরের মনোহরপুর উজির দিঘির দক্ষিণ পাড়ে। সেখানে মুনিয়াদের পৈত্রিক একতলা পাকা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *