চাকরির সাক্ষাৎকারে ঢাকায় এসে বাড়ি ফেরা হলো না শাহাদাতের

মা’দারীপুরের শিবচর উপজেলার দোতরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে বসে কাঁদছিলেন (২৭) বছর

বয়সী শহিদুল মোল্লা। তাকে সান্ত্বনা দেয়ার কেউ নেই। স্বজন হারানোর কান্না থামছেই না। কাঁঠালবাড়ীর

 

বাংলাবাজার পুরোনো ঘাটে বালুবোঝাই একটি বাল্কহেডের সঙ্গে ধাক্কা লেগে স্পিডবোট ডুবিতে তার ভাই

প্রাণ হারিয়েছেন। দু’র্ঘটনায় নি’হত তার ভাইয়ের নাম শাহাদাত হোসেন মোল্লা (২৯)। তার বাড়ি মা’দারীপুরেরর

 

শিবচর উপজেলার নিয়ামতকান্দী গ্রামে। আদম আলী মোল্লা ও রিজিয়া বেগম দম্পতির ছয় ছেলে ও চার মেয়ের

মধ্যে সবার ছোট ছিলেন শাহাদাত। তিনি এ বছর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স পাস করেন। শাহাদাত

 

হোসেন মোল্লার চাচাতো ভাই সাবেক মেম্বার দাদন মোল্লা (৬০) বলেন, ‘এ বছর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে

মাস্টার্স পাস করেন শাহাদাত। চাকরির ইন্টারভিউ দিতে ঢাকা যান। ইন্টারভিউ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন।

 

চাকরি করা হলো না শাহাদাতের। লা’শ হয়ে তাকে ফিরতে হলো। আমর’া কী বলে সান্ত্বনা দেব ওর

পরিবারকে?’ কান্না করতে করতে তিনি বলেন, ‘আদরের ছোট ভাই শাহাদাত। লকডাউনের ভেতর ঢাকা

 

যেতে না বলেছিলাম। তবুও গেছে। ভাই, তোকে হারালাম ভাই।’ মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া থেকে সোমবার

(৩ মে) সকাল পৌনে ৭টায় ৩২ জন যাত্রী নিয়ে স্পিডবোটটি ছেড়ে আসে। এসময় মা’দারীপুর কাঁঠালবাড়ী

 

বাংলাবাজার পুরোনো ঘাটে থেমে থাকা বালুবোঝাই একটি বাল্কহেডে ধাক্কা দিয়ে ডুবে যায় স্পিডবোটটি।

দু’র্ঘটনায় ২৬ জন নি’হত ও কয়েকজন আ’হত হন। দু’র্ঘটনায় ২৬ জন নি’হত ও কয়েকজন আ’হত হন।

 

 

Check Also

ধর্ম নিয়ে রুচিহীন প্রশ্ন বন্ধ হোকঃ বিব্রত চঞ্চল চৌধুরী

বাংলা নাটকের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র চঞ্চল চৌধুরী। এই পর্যন্ত ভিন্নধর্মী অভিনয় করে ভক্তদের হৃদয়ের মণিকোঠায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *