তরমুজ, কাঁঠালের পর এবার কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে বেল!

প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ভিটামিন এ, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও পটাশিয়াম সমৃদ্ধ ফল বেলের চাহিদা

সারাবছরই রয়েছে। বিশেষ করে বয়স্কদের কাছে বেলের কদর সব থেকে বেশি। ভিটামিন সি গ্রীষ্মকালীন

 

বহু রোগবালাই দূরে রাখে। তাই গ্রীষ্মকালেই বেলের চাহিদা থাকে সবচেয়ে বেশি। আর রমজানে ইফতারে

বেলের শরবতে রোজাদারদের রয়েছে আলাদা এক তৃপ্তি। সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে এক গ্লাস

 

বেলের শরবত দূর করে দেয় রোজাদারের সকল ক্লান্তি। একদিকে সারাদেশে প্রচণ্ড দাবদাহ, অন্যদিকে চলমান

পবিত্র রমজান মাস। আর এ সময়ে বেলের চাহিদাটাকে পুঁজি করে একটা বিশেষ সি’ন্ডি’কেটে বেশি মুনাফার

 

আশায় বেছে নিয়েছে অসা’ধু পন্থা। সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে তরমুজ ও কাঁঠাল বিক্রি হতে দেখা গেছে

কেজি দরে। আর সেই ধারাবাহিকতায় এবার বরগুনায় কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে বেলও। কৃষক ও পাইকারি

 

পর্যায় থেকে পিস দরে কিনে তা কেজি দরে বিক্রি করায় ঠকছেন সাধারণ ক্রেতারা। সরেজমিন বরগুনার

বাজারে ঘুরে এ তথ্য জানা গেছে। তবে কেজি দরে বেল বিক্রি করতে গিয়ে অনেক খুচরা বিক্রেতাও সন্তুষ্ট

 

হতে পারছেন না। তাদের মতে কেজি দরে বেল বিক্রি করাতে খুচরা পর্যায়ের বিক্রেতা ও সাধারণ ক্রেতারাই

ঠকছেন। আর লাভবান হচ্ছে কেবল মধ্যস্বত্বভোগী সি’ন্ডি’কেট। ব্যবসায়ীরা বলছেন, পিস হিসেবেই বিক্রি হতো

 

বেল। কিন্তু এখন তা কেজি দরে বিক্রি হয়। আর ক্রেতারা বলছেন, সি’ন্ডি’কেটের কারণে নিরুপায় হয়ে কেজি

দরে কিনতে হচ্ছে পুষ্টিগুণে ভরপুর এই ফলটি। এতে দাম বেশি পড়লেও নিরুপায় তারা। বরগুনা শহরের রাস্তার

 

পাশের ফল বিক্রেতা খোরশেদ আলম জানান, কখনো বেল কেজি দরে বিক্রি হতে পারে তা সে নিজেও কোনো দিন

ভাবতে পারেননি। অথচ এ বছর রমজানেই তরমুজ আর কাঁঠালের দেখাদেখি বেলও কেজি দরে বিক্রি শুরু হয়েছে।

 

 

Check Also

মুনিয়ার অতীতের সব জানালেন তার বোন নুসরাত তানিয়া

মুনিয়াদের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা শহরের মনোহরপুর উজির দিঘির দক্ষিণ পাড়ে। সেখানে মুনিয়াদের পৈত্রিক একতলা পাকা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *