1. tahsanrakibkhan2@gmail.com : admin :
  2. dailymoon24@gmail.com : Fazlay Rabby : Fazlay Rabby
দেশের সব মসজিদে ৫ হাজার করে টাকা দিচ্ছে সরকার ! - Daily Moon
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০২ পূর্বাহ্ন

দেশের সব মসজিদে ৫ হাজার করে টাকা দিচ্ছে সরকার !

ফজলে রাব্বি
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২১ মে, ২০২০
  • ১৭৮ View

৫ হাজার করে টাকা- ক’রোনা ভা’’ইরাস সং”ক্রমণ পরিস্থিতিতে আর্থিক অনুদান

হিসেবে দেশের দুই লাখ ৪৪ হাজার ৪৩টি মসজিদের জন্য ১২২ কোটি দুই লাখ ১৪

হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে সরকার। প্রতিটি মসজিদ পাঁচ হাজার হারে এ অনুদান পাবে।

 

ইসলামিক ফাউন্ডেশন এ টাকা বিতরণ করবে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক

আনিস মাহমুদ স্বাক্ষরিত গতকাল বুধবার পাঠানো এই সম্পর্কিত একটি সার্কুলারে বলা হয়েছে,

বিশ্বব্যাপী বিরাজমান ক’রোনাভা’ইরাস সংক্র’মণ পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব

 

অনুসরণসহ নানাবিধ কারণে দেশের মসজিদগুলোতে মুসল্লীগণ স্বাভাবিকভাবে ইবাদত করতে

পারছে না। এতে দানসহ অন্যান্য সাহায্য কমে যাওয়ায় মসজিদের আয় হাস পেয়েছে।

ফলে মসজিদের দৈনন্দিন ব্যয় নির্বাহ করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

 

প্রধানমন্ত্রী বিদ্যমান পরিস্থিতিতে মসজিদসমূহের আর্থিক অসচ্ছলতা দূরীকরণে

প্রত্যেক মসজিদের অনুকূলে পাঁচহাজার টাকা হারে অনুদান প্রদানের অনুমোদনের

পরিপ্রেক্ষিতে দেশের সকল জেলায় অবস্থিত সিটি কর্পোরেশন,

পৌরসভা এলাকা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে অবস্থিত মোট ২,৪৪,০৪৩টি

মসজিদের প্রত্যেকটির অনুকুলে পাঁচ হাজার টাকা হারে সর্বমোট একশত বাইশ

কোটি দুই লক্ষ পনের হাজার টাকা ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফারের মাধ্যমে ইফার সংশ্লিষ্ট বিভাগ,

 

জেলা কার্যালয়ের পরিচালক, উপ-পরিচালকের ব্যাংক হিসাবে পাঠানো হয়েছে।

এতে আরো বলা হয়, জেলাপ্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ইফার পরিচালক

/উপ-পরিচালকের সমন্বয়ে অনুদানের অর্থ/চেক বিতরণ করতে হবে।

 

অনুমোদিত তালিকায় কোনও প্রকৃত মসজিদের তথ্য বাদ পড়ে থাকলে সংশ্লিষ্ট

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রত্যয়নসহ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে প্রয়োজনীয় অতিরিক্ত

বরাদ্দের জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক বরাবর পাঠাতে হবে।

 

জরুরি ভিত্তিতে অনুদানের অর্থ বিতরণ করে আগামী ১৫ জুন ২০২০ তারিখের মধ্যে

বাস্তয়ন প্রতিবেদন দেয়ার জন্য সংশ্লিদের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, দেশের ক’রোনাভা’ই’রাস পরিস্থিতিতে দেশের জেলা পর্যায়ে সরকারি কর্মকর্তা

 

ও জনপ্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময়কালে দেশের সব মসজিদগুলোতে অর্থ

সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ধানের ভালো ফলন ও দাম পেয়ে কৃষকের মুখে হাসি

 

নওগাঁর আত্রাইয়ে এবারে বোরো ধানের যেমন ফলন হয়েছে তেমনি দামও পাচ্ছে কৃষকরা।

ধান কাটার ভরা মৌসুমে বাজারে ধানের দাম ভাল পাওয়ায় কৃষকদের চোখেমুখে হাসি ফুটে উঠেছে।

বিগত কয়েক বছর থেকে বোরো ধানে লোকসানের শিকার হয়ে কৃষকরা হতাশ হয়ে পড়েছিল।

 

এবারে ধানের ফলন ও দাম ভাল পাওয়ায় তারা আর হতাশ নয় বরং তারা কিছুটা হলেও

ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছে। জানা যায়, গত বেশ কয়েক বছর থেকে আত্রাইয়ে

বোরো ধানের চাষ করে কৃষকরা লোকসানের শিকার হচ্ছিল। ধান পাকার মৌসুমে প্রতিকূল

 

আবহাওয়া, পানিতে ধান ডুবে যাওয়া, শ্রমিক সংকট ও নানাবিধ সমস্যার কারনে বোরো

চাষে কৃষকদের অনেক লোকসান গুনতে হয়েছে। যার ফলে এবারে উপজেলার বিভিন্ন মাঠে

অনেক জমি অনাবাদি পড়ে থাকতে দেখা গেছে। তারপরও যেহেতু এ আবাদই এলাকাবাসীর

 

একমাত্র ভরসার আবাদ তাই প্রতি বছরই তাদের বোরোচাষ করতে হয়। এবারে বোরো চাষ

করে বাম্পার ফলন ও বাম্পার মূল্য পাওয়ায় কৃষকদের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে।

উপজেলার শাহাগোলা গ্রামের কৃষক আজাদ আলী সরদার বলেন,

 

বিগত দিনের তুলনায় এবারে আমরা বোরো ধানের সর্বাধিক ফলন পেয়েছি।

আমাদের এলাকায় সকলেই জিরাসাইল ধানের আবাদ করে। এ ধানের চাল চিকন,

ভাত খুব মজাদার তাই এলাকাজুড়ে এখন এ ধানেরই চাষ করা হয়। আমার এবং

 

আমাদের মাঠে অন্যান্য কৃষকের জমিতে এবারে বিঘা প্রতি ২৫ থেকে ২৮ মণ হারে

বোরো ধান উৎপন্ন হয়েছে। বজ্রপুর গ্রামের কৃষক মেহেদী হাসান রুবেল বলেন,

করোনা পরিস্থিতির কারনে আমরা ধান কাটা নিয়ে আতঙ্কের মধ্যেই ছিলাম।

 

কিন্তু ধান পাকার শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী ধান কাটা শ্রমিকদের আসা নিশ্চিত করায় এবং

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামীলীগসহ বিভিন্ন সংগঠন আমাদের পাশে দাঁড়ানোর

ফলে আমাদের কোন দুর্ভোগ পোহাতে হয়নি। এবারে আমরা ধানের যে দাম পেয়েছি

 

তাতে বোরো চাষে আমরা লাভবান হয়েছি। বর্তমানে আমাদের এখানে জিরাসাইল

ধান ৯৩০ থেকে ৯৫০ টাকা মণ বিক্রি হচ্ছে। এ বিষয়ে আত্রাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা

কৃষিবিদ কেএম কাউছার হোসেন বলেন, এবারে বোরো চাষের শুরু থেকেই অনুকূল আবহাওয়া,

 

যথাসময়ে ধানের চারা রোপন, সঠিক পরিচর্যা সবকিছু মিলে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে।

অন্যান্য বারের তুলনায় এবারে ধান কাটার সময় আবহাওয়া অনুকূল থাকায় এবং

ধানকাটা শ্রমিক যথাসময়ে পৌঁছানো নিশ্চিত করায় কৃষকদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়নি।

বর্তমানের বাজারে ধানের যে দাম রয়েছে প্রতি বছর ধানের এমন দাম পেলে কৃষকরা

বোরাে চাষে আরও ঝুঁকবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021  dailymoon24.com
Theme Customized BY IT Rony