মাত্র পাওয়াঃ বেগম জিয়ার সুস্থতা নিয়ে যা জানাল চিকিৎসক

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক দুর্বলতা আস্তে আস্তে কমছে। ১৪তম দিনেও তিনি অনেকটা

ভালো আছেন বলে জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক দলের সদস্য প্রফেসর ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন।

 

গতকাল বুধবার (২১ এপ্রিল) রাতে রাজধানীর গুলশানে খালেদা জিয়ার বাসায় গিয়ে তাকে দেখে বের হয়ে

সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।  ডা. জাহিদ বলেন, আমি ও ডা. মামুন বেশ কিছুক্ষণ খালেদা জিয়ার শারীরিক

 

অবস্থা দেখলাম। বুধবার ওনার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ১৪তম দিন শেষ হলো। অক্সিজেন স্যাচুরেশন

আগে যেমন ছিল অর্থাৎ ৯৮/৯৯ পার্সেন্ট সব সময় থাকে। খাবারের রুচি আগেও ভালো ছিল, এখনো ভালো আছে।

 

টেম্পারেচার আজ তিন দিন যাবত নরলাম। চেস্টে কোনো ধরনের সমস্যা নেই। কফ কাশিও নেই। অর্থাৎ করোনা

সংক্রান্ত যেসব উপসর্গ সেটি নেই। তবে অল্প শারীরিক দুর্বলতা আছে। যেটা উনি কাটিয়ে উঠছেন। তিনি বলেন,

 

করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর শারীরিক দুর্বলতা দীর্ঘ সময় থাকে। তারপরও ম্যাডামের সেই দুর্বলতা প্রতিদিনই কমে

যাচ্ছে। গত মঙ্গলবারের (২০ এপ্রিল) চেয়ে আজকে উনার দুর্বলতা অনেক কম। উনি নিজেও বলেছেন আজকে

গতকালকের চেয়ে ভালো বোধ করছি। এ অবস্থায় আমরা চিকিৎসক হিসেবে বলতে পারি উনি ভালোর দিকে

 

যাচ্ছেন। ডা. জাহিদ বলেন, আজকে দ্বিতীয় সপ্তাহের লাস্ট ডে। অনেক উন্নতি হয়েছে। ওনার অবস্থা এখন শুধু

স্থিতিশীল নয়, তার থেকেও প্রতিদিন অল্প অল্প করে উন্নতি করছেন। আগামী ২/১ দিনের মধ্যে ওনার ব্লাড টেস্ট

 

করা হবে। পরবর্তীতে আগামী সপ্তাহে সুবিধাজনক সময়ে করোনার টেস্টও করা হবে। তিনি বলেন, আপনারা

জানেন আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সব সময় এ ব্যাপারে সজাগ। তার স্ত্রী ডা. জোবাইদা

 

রহমানও ভেরি মাচ কনসার্ন। তিনি সব সময় সমন্বয় করছেন। চিকিৎসার প্রতিটা বিষয়ে তিনি সব সময় দেখছেন।

সেসঙ্গে আত্মীয়-স্বজনরা সবাইসহ দলের নেতাকর্মীরা উনার চিকিৎসার ব্যাপারে সব সময় সজাগ ছিলেন। উনি

 

ঝুঁকিমুক্ত কিনা জানতে চাইলে ডা. জাহিদ বলেন, সার্বিকভাবে বিবেচনা করলে উনি উন্নতি করেছেন এ কথা বলা

যায়। খালেদা জিয়ার বাসায় যেসব স্টাফ আক্রান্ত হয়েছিলেন সবাই ম্যাডামের চেয়েও ভালো আছেন বলে জানান

. জাহিদ। তিনি বলেন, তাদের বয়স ম্যাডামের চেয়েও কম। কাজেই তারা সবাই ভালো আছেন।

 

 

Check Also

নিঃস্ব হওয়ার পথে ভারত!

জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফ বলছে, ভারতে প্রতি সেকেন্ডে চারজন করে নতুন করো’না রোগী শনা’ক্ত হচ্ছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *