মামুনুলকে নিয়ে আ’পত্তিকর পোস্ট, যুবলীগ নেতা আ’টক

হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাস’চিব আল্লামা মামুনুল হকের ছবির স’ঙ্গে এক না’রীর

আ’পত্তিকর ছবি পোস্ট করায় সুনামগঞ্জে এক যুবলীগ নেতাকে আ’টক করা হয়েছে। এমাদ আহমেদ

 

জয় নামের ওই ব্যক্তি তাহিরপুর উপজে’লা যুবলীগের মুক্তিযোদ্ধা বি’ষয়ক সম্পাদক।রোববার (০৪ এপ্রিল)

দুপুরে তাহিরপুর থানার ভারপ্রা’প্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ তরফদারের নেতৃত্ব তাকে আ’টক করে

 

থানায় নিয়ে আসা হয়। আ’টককৃত ওই নেতা উপজে’লার বাদাঘাট ইউনিয়নের ভোলাখালী গ্রামের প্রয়াত

বীর মুক্তিযোদ্ধা জজ মিয়ার ছেলে। পু’লিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিকালে এক না’রীর অ’শ্লীল

 

ছবির সাথে হেফাজতের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাস’চিব মামুনুল হকের ছবিযুক্ত করে জয় তার ফেসবুক

আইডিতে একটি পোস্ট করে। এ নিয়ে আলেম সমাজ ও হেফাজত অনুসারীদের মধ্যে প্রতিক্রিয়া দেখা

 

দিলে বি’ষয়টি থানা পু’লিশের নজরে আসে। এরপর এমা’দকে আ’টক করে থানায় নিয়ে আসা হয় এবং

তাহিরপুরের আলেম সমাজের নেতৃবৃন্দের সাথে থানায় মতবিনিময় করা হয়ে। তাহিরপুর থানার ভারপ্রা’প্ত

 

কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল লতিফ তরফদার বলেন, শাল্লা নোয়াগাঁও মত যাতে তাহিরপুরে কোন ধরনের

‘বিশৃঙ্খলা ও অপ্রীতিকর ঘ’টনা এড়াতে ওই যুবককে আপাতত পু’লিশ হেফাজতে নিয়ে আসা হয়েছে।

 

ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ ৫০ বছর ধরে বিয়ে পড়ান ভুয়া

কাজি ! নিবন্ধ’ন না থাকার পরও বিয়ে পড়ানোর অভিযোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মোহাম্ম’দ মোসাদ্দেক হোসেন

(৬১) নামে এক ব্যক্তিকে সোমবার দুপুরে বিয়ের আসর থেকে আ’টক করা হয়েছে। পৌর এলাকার

 

কাউতলীর একটি হোটেল থেকে কাজি সমিতির নেতারা তাঁকে আ’টক করে পু’লিশের হাতে তুলে দেয়।

আ’টক মোসাদ্দেক জে’লার নবীনগর উপজে’লায় শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের বানিয়াচং গ্রামের মৃ’ত শরীফ

ছেলে। তাঁর কাছ থেকে একটি বিয়ে নিবন্ধ’ন বই ও দুটি তালাক নিবন্ধ’ন বই এবং সিলমোহর উ’দ্ধার করা

 

হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জে’লা কাজি সমিতির সভাপতি ইয়াহিয়া মাসুদ জানান, মোসাদ্দেক স’রকারের

নিবন্ধিত কোনো কাজি নন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে কাজি পরিচয়ে বিয়ে পড়িয়ে আসছিলেন। তাজ হোটেলে

 

একটি বিয়ে নিবন্ধ’ন করার সময় কাজি সমিতির নেতারা তাঁকে হাতেনাতে আ’টক করেন। এরপর তাঁকে

জে’লা রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি অভিযোগ করেন, দীর্ঘদিন ধরে একটি চ’ক্র ভুয়া

কাগজপত্র তৈরি করে বিয়ে ও তালাক নিবন্ধ’ন করে আসছে। মূ’লত নিবন্ধিত কাজিরা যেসব বিয়ের

 

নিবন্ধ’ন কাজ প্রত্যাখ্যান করেন- ওই চ’ক্রটি সেসব বিয়ে নিবন্ধ’ন করে থাকে। আ’টক মোসাদ্দেক জানান,

তিনি ১৯৭১ সাল থেকে কাজির দায়িত্ব পালন করছেন। তাঁর কাগজপত্রের বৈধতা নিয়ে আ’দালতে মা’মলা

আছে। মা’মলার একাধিক রায়ও তিনি পেয়েছেন। জে’লা রেজিস্ট্রার স’রকার লুৎফুল কবির বলেন, আ’টক

 

ব্যক্তি নিবন্ধিত কাজি নন। তাঁর বৈধতার পক্ষে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে পারেননি তিনি।

এ ছাড়া তাঁর কাছে পাওয়া নিবন্ধ’ন বইগুলোও নকল বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর

 

থানার পরিদর্শক (ত’দন্ত) মুহাম্ম’দ শাহজাহান জাহান, ওই ব্যক্তিকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

এ বি’ষয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

 

 

Check Also

নিঃস্ব হওয়ার পথে ভারত!

জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফ বলছে, ভারতে প্রতি সেকেন্ডে চারজন করে নতুন করো’না রোগী শনা’ক্ত হচ্ছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *