1. tahsanrakibkhan2@gmail.com : admin :
  2. dailymoon24@gmail.com : Fazlay Rabby : Fazlay Rabby
সিনেমা, গান ও কনসার্ট সমাজ ''ধ্বং'স করে দিচ্ছে : সৌদির প্রধান মুফতি - Daily Moon
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫০ অপরাহ্ন

সিনেমা, গান ও কনসার্ট সমাজ ”ধ্বং’স করে দিচ্ছে : সৌদির প্রধান মুফতি

ফজলে রাব্বি
  • Update Time : শুক্রবার, ২২ মে, ২০২০
  • ৯৪৩ View

পবিত্র মক্কা-মদিনাকে বুকে ধারনকারী দেশ সৌদি আরবের প্রধান মুফতি

শাইখ আবদুল আজিজ বলেছেন, সিনেমা, গান ও কনসার্ট মানুষের নৈতিক অবক্ষয় ঘটায়।

সমাজে এসবের অনুমোদন হলে নৈতিকতা ধ্বংস। সমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে এসব।

 

নিউজ ওয়েবসাইট ‘সবক’কে দেয়া এক সাক্ষতকারে তিনি এসব কথা বলেন।

ফরাসি বার্তা সংস্থা সূত্রে শনিবার দৈনিক পাকিস্তান উর্দু এ খবর দিয়েছে।

সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, গান গাওয়া এবং সিনেমা দেখা মন্দ কাজ। গানের মঞ্চে ভালো কিছু নাই।

 

বিনোদনমূলক সিনেমায় অনৈতিক বিষয়গুলো উপস্থাপন করা হয়। তবে, সাংস্কৃতিক,

বৈজ্ঞানিক বিষয় এবং সুষ্ঠু আদর্শিকতার উপর উপকারী কিছু প্রচার করা হলে তাতে

কোনো অসুবিধা নেই। তিনি আরও বলেন, গানের মঞ্চ প্রথমে নারী-পুরুষদের জন্য

 

আলাদা আলাদা তৈরি করা হলেও পরে সবাই এক হয়ে যায়। এতে করে নৈতিকতা ধ্বংস

হয়ে যায় এবং অবাধ ও অবৈধ যৌনতার বিভিন্ন স্তরের প্রকোপ বাড়ে।

অ’শ্লিল ও অ’নৈতিকতার প্রতি উদ্বুদ্ধমূলক সিনেমা ও গানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের

উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘শয়তানের রাস্তা খুলে দিবেন না।’

 

অর্জিত সব সম্পদ  অসহায়দের দান করে ঋণ নিয়ে ফিরলেন অস্ট্রেলিয়ান দম্পতি

কো’ভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্তদের সর্বস্ব বিলিয়ে ঋণ করে দেশে ফিরলেন বাংলাদেশী

বংশোদ্ভুত অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক আরফান উদ্দিন। তার অর্জিত সব অর্থ দান

করে গেলেন দেশে অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে।

জানা যায়, অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক আরফান উদ্দিন স্বপরিবারে

 

গত ৪ ফেব্রুয়ারী অস্ট্রেলিয়া হতে বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল উপজেলার

দরিরামপুরে তার গ্রামের বাড়ীতে আসেন। দেশে আসার কিছু দিন অতিবাহিত না

হতেই শুরু হয় প্রাণ’ঘা’তি করোনা ভা’ইরা’স (কো’ভিড-১৯) এর প্রাদুর্ভাব।

 

এরই মাঝে সরকারি নির্দেশনায় অবরুদ্ধ করা হয় দেশের প্রতিটি অঞ্চল।

কর্মহীন হয়ে পরে এ দেশের অধিকাংশ মানুষ। মানবিক দিক বিবেচনা

করে অসহায় ও দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে শুরু করেন আরফান উদ্দিন ও

 

তার স্ত্রী সাবিয়া এরফান। তার অর্জিত টাকার ১৩ লাখ টাকার ত্রাণ সহায়তা দেন ত্রিশাল,

হালুয়াঘাট ও ধোবাউড়া উপজেলায় কর্মহীন, অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে।

এতে তার ব্যাংক হিসাব শূণ্যে চলে আসে। আরফান উদ্দিন অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক

 

হওয়ায় অস্ট্রেলিয়া সরকারের ডাকে ও জীবিকার তাগিদে স্ত্রী ও দুই সন্তান তিন

বছর বয়সী আবিয়া আরফান ও দেড় বছর বয়সী আইবা আরফানকে রেখে আবার

গত ২৭ এপ্রিল ফেরৎ চলে যেতে হয় অস্ট্রেলিয়ায়।

তিনি চলে গেলেও থেমে থাকেনি তার মানবিক কার্যক্রম। অসহায়দের মাঝে

ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম চালিয়ে এদেশের মানুষের পাশে দাঁড়ান তার স্ত্রী সাবিয়া এরফান।

আরফানের স্ত্রী সন্তান অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক হওয়ায় তাদেরও দেশে ফিরে যাওয়ার

 

নির্দেশনা দেয় অস্ট্রেলিয়ান সরকার। তখন ব্যাংকে একাউন্ট শূন্য হওয়ায় বিমান

ভাড়ার টাকা না থাকায় বিপাকে পড়েন আরফান উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া এরফান।

কোনো উপায় না পেয়ে অস্ট্রেলিয়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় ও বাংলাদেশে

 

অবস্থিত অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনের মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়ায় সাত হাজার ২০০

ডলার ঋণের আবেদন করেন (বাংলাদেশি টাকায় চার লাখ ৩২ হাজার টাকা)।

আবেদনের প্রেক্ষিতে ঋণ দেন দেশটির সরকার।

আরফান উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া এরফান দুই সন্তানকে নিয়ে একটি বিশেষ বিমানে

করে গত ৯ মে ফেরৎ চলে যান অস্ট্রেলিয়ায়। এ অবস্থায় গুনতে হয় বিমানের

অতিরিক্ত ভাড়া, যা অন্যান্য সময়ের তুলনায় পাঁচ গুণ বেশি।

 

দুই বছরের কম বয়সী শিশুর ক্ষেত্রে বিমানের ভাড়া নেয়ার নিয়ম না থাকলেও

বিশেষ বিমান হওয়ায় তিনটি টিকিটই কিনতে হয় পাঁচ গুণ বেশি টাকা দিয়ে।

যার প্রতিটি টিকিটের মূল্য বাংলাদেশি টাকায় এক লাখ ৫০ হাজার টাকা করে।

 

আরফান উদ্দিনের স্ত্রী ও দুই সন্তান অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার পর দেশটির সরকারি

ব্যবস্থাপনায় রাখা হয় হোম কোয়ারে’ন্টাইনে। তাদের করোনাভাই’রাসের (কোভিড-১৯)

কোনো উপসর্গ না থাকলেও দেশটির নিয়ম অনুযায়ী থাকতে হচ্ছে এ ব্যবস্থাপনায়।

 

এই দম্পতির মানবিক কার্যক্রমের বিষয় ত্রিশাল, ধোবাউড়া ও হলুয়াঘাট উপজেলায়

জানাজানি হলে ব্যাপক প্রশংসিত হন তারা । তাদের এ ধরনের উদারতায় মুগ্ধ এলাকাবাসী।

গত বছর অস্ট্রেলিয়ান লেবার পার্টির অন্যতম গণনেতা টনিবার্কের সঙ্গে আরফান

 

ফ্যামেলি’স স্মাইলিং বেবি ফাউন্ডেশন কর্ণধার আরফান উদ্দিনের সৌজন্য সাক্ষাৎ হয়।

এ সময় ফাউন্ডেশনের কর্মকান্ড পর্যালোচনা করে প্রশংসা করেন টনিবার্ক।

আরফান উদ্দিনের সঙ্গে এ বিষয়ে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কথা বললে তিনি বলেন,

 

শুধু নগর বা মফস্বল কেন্দ্রিক নয়, সীমিত সবটুকু সামর্থ দিয়ে আমরা চেষ্টা করছি

প্রত্যন্ত ও দূর্গম এলাকাতেও জরুরি খাবার নিয়ে পৌঁছে দিতে। কিছু পাওয়ার আনন্দে

এসব মানুষের নিখাদ ভালোবাসা সত্যি আবেগময়। ধন্যবাদ সাবিয়া এরফানকে,

তার ক্লান্তিহীন সহযোগিতার জন্য।

Please Share This Post in Your Social Media

One thought on "সিনেমা, গান ও কনসার্ট সমাজ ”ধ্বং’স করে দিচ্ছে : সৌদির প্রধান মুফতি"

  1. সলাইমান says:

    আমারা সুদকে মেনে নিয়েছি, সেটা কারও নজরে আসে না, সবার নজর গান বাজনার দিকে। আমারা মানুষ নামের কলঙ্ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021  dailymoon24.com
Theme Customized BY IT Rony