আমেরিকাকে করা হু’শি’য়া’রি দি’ল চীন, বিস্তারিত…………

আমেরিকাকে করা হু’শি’য়া’রি দি’ল চীন, বিস্তারিত…………

সোমবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, জ’র্জ ফ্ল’য়ে’ডকে হ’ত্যা’র পর যুক্তরাষ্ট্রের উদ্ভূত

পরিস্থিতি আমরা পর্যবেক্ষণে রেখেছি। কা’লো মা’নুষ’দেরও বেঁ’চে থা’কার অ’ধিকার আছে। তাদের

মানবাধিকার সুরক্ষা দেয়া উচিত। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণবৈষম্য একটি সামাজিক ব্যাধির মতো।

 

সেখানে বারবার যা ঘটছে, তা মারাত্মক সংকটেরই প্রতিফলন। তাদের উচিত এই সমস্যার জরুরি

ভিত্তিতে সমাধান করা। সেটা হচ্ছে, পুলিশের বর্ণবৈষম্য ও সহিংস বলপ্রয়োগ। জহাও বলেন, নৃতাত্ত্বিক

সংখ্যা’ল’ঘু’দের আইনগত অধিকার সুরক্ষায় সব ধরনের ব’র্ণ’বৈষম্য দূর করতে আ’ন্তর্জা’তিক চু’ক্তির অধীন

 

বাধ্যবাধকতাগুলো পালনে যুক্তরাষ্ট্র সরকার বাস্তবিক পদক্ষেপ নেবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি।

ফ্লয়েডের হ’ত্যা’কা’ণ্ডে”র প্র”তিবাদে যু”ক্তরা’ষ্ট্র’জুড়ে বি”ক্ষোভে চী’ন’সহ বিভিন্ন দেশ হস্তক্ষেপ করছে বলে

মার্কিন কর্মকর্তাদের এমন বক্তব্যের বিষয়ে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ও’ব্রেইন

 

ও মার্কিন কর্মকর্তাদের বক্তব্য সম্পূর্ণ ‘ভি’ত্তি’হীন। চীন কোনো দেশের ঘরোরা বিষয়ে হ’স্ত’ক্ষেপ করে না।

মার্কিন রাজনীতিবিদদের উচিত নিজের চরকায় তেল দেয়া। ফ্লয়েডের হ”ত্যা’কাণ্ডে”র প্র’তিবাদে যু”ক্তরাষ্ট্র’জু’ড়ে

বিক্ষোভে চীনসহ বিভিন্ন দেশ হস্তক্ষেপ করছে বলে মার্কিন কর্মকর্তাদের এমন বক্তব্যের বিষয়ে তিনি বলেন,

যু’ক্তরাষ্ট্রের জা’তীয় নিরাপত্তা উ’পদেষ্টা ও’ব্রেইন ও মা’র্কিন কর্মকর্তাদের ব’ক্তব্য সম্পূর্ণ ভি”ত্তি’হীন।

 

ট্রাম্পের সঙ্গে মোদির ২৫ মিনিটের ফোনালাপ ফাঁ’স,গোপন তথ্য ফাঁ’স………

লাদাখ সীমান্তে চীন-ভারতের মধ্যে সাম্প্রতিক উ’ত্তেজ”না, জি৭-এ ভারতের অন্তর্ভুক্তি,

যুক্তরাষ্ট্রে জর্জ ফ্লয়েড হ’ত্যাকা’ণ্ডের প্রতিবাদে চ’ল’মান বি’ক্ষোভসহ সাম্প্রতিক নানা

ইস্যু নিয়ে টেলিফোনে কথা বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও

 

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মঙ্গলবার এ দুই নেতার মধ্যে প্রায় ২৫ মিনিট কথা হয়েছে

বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। চীনের সঙ্গে সম্পর্কটা মোটেও ভালো যাচ্ছে না

মার্কিন প্রেসিডেন্টের। বাণিজ্যযু’দ্ধের পর করো’নাভাই’রাসের উৎস নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব

দিনদিন আরও তীব্র হচ্ছে। বিশেষ করে ট্রাম্পের দিক থেকে আ’ক্রমণ আসছে একের পর এক।

 

এশিয়া অঞ্চলে চীনের প্রভাব কমাতে ভারতকে কাছে টানার পথেই হাঁটছেন এ রিপাবলিকান নেতা।

নরেন্দ্র মোদিকে ‘প্রিয় বন্ধু’র স্বীকৃতি দিয়েছেন অনেক আগেই, দেখা-সাক্ষাতও হয়েছে বেশ কয়েকবার।

সম্পর্কের উষ্ণতা বোঝাতে বাগাড়ম্বরের অভাব রাখেনননি কেউই। ট্রাম্পের ভারত সফরে তা প্রকাশ

পেয়েছে আরও জোরেশোরে। এ কারণে চীনের সঙ্গে দ্বন্দ্বে যুক্তরাষ্ট্র ভারতের পাশে থাকবে,

 

সেটাকেই স্বাভাবিক বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। সোমবার মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের বৈদেশিক

সম্পর্ক বিভাগের প্রধান এলিয়ট এঞ্জেল জানিয়েছেন, ভারতের চূড়ান্ত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর ‘চীনা

আগ্রাসন’ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র অত্যন্ত উ’দ্বিগ্ন। এ সংকট সমাধানে ভারতের সঙ্গে বিদ্যমান প্রক্রিয়া ও

কূটনৈতিক সম্পর্ক মেনে চলতে চীনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 NewsTheme
Design BY jobbazarbd.com