স্বামীর গলায় অ’স্ত্র ঠেকিয়ে গৃহবধূকে লা’গাতার গণধ’র্ষণ

স্বামীর গলায় অ’স্ত্র ঠেকিয়ে গৃহবধূকে লা’গাতার গণধ’র্ষণ

চাঁদপুরে স্বামীর গলায় অ’স্ত্র ঠেকিয়ে গৃহবধূকে গণধ’র্ষণ করার অ’ভিযোগ উঠেছে। ধ’র্ষণকারীদের

বাধায় গৃহবধূ চিকিৎসা নিতে চাঁদপুর সরকারি হাসপাতা’লে আসতে পারছেন না বলে অ’ভিযোগ

করেছেন তার স্বামী। এছাড়াও ধ’র্ষণকারীদের বি’রুদ্ধে মা’মলা করলে গৃহবধূ ও তার স্বামীকে জানে

 

মে’রে ফেলার হু’মকি দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক উত্তে’জনা বিরাজ করছে।

শনিবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটলেও সংবাদ কর্মীদের কাছে প্রকাশ পায় রবিবার বিকেল সাড়ে

৫টায়। চাঁদপুর সদর উপজে’লার ১৪ নম্বর রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড লক্ষ্মীর চরে

 

এক কৃষকের ঘরের দরজা ভেঙে সাত-আটজন দুর্বৃত্ত ঘরের ভিতরে ঢুকে এই গণধ’র্ষণের ঘটনা ঘটায়।

তবে এলাকার কিছু মানুষ ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে। এই লোমহর্ষক ঘটনার বর্ণনা দিয়ে

ধ’র্ষিতা গৃহবধূর কৃষক স্বামী বলেন, এলাকার চিহ্নিত স’ন্ত্রাসী আসমত আলী মিজি, বাবুল গাজী, ফয়সাল

 

গাজী, রুহুলামিন মিজিসহ সাত-আটজন মুখোশ পরে দেশীয় অ’স্ত্র নিয়ে ঘরের দরজা ভেঙে ভিতরে ঢুকে।

এ সময় তার গলায় অ’স্ত্র ঠেকিয়ে ভ’য়ভীতি দেখিয়ে তার স্ত্রী’কে পাশের ঘরে জো’রপূর্বক নিয়ে একের পর

এক ধ’র্ষণ করে। এ সময় তিনজনের মুখোশ খোলা থাকায় তাদেরকে খুব সহ’জে চিনে ফেলেন গৃহবধূর স্বামী।

 

এলাকাবাসী জানায়, ঘটনাটি রবিবার দুপুরে রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ওসমান

গাজীসহ কয়েকজনকে জানালে তারা ধ’র্ষণকারী কয়েকজনকে এনে সালিশি বৈঠক করেন। পরে সবার

উপস্থিতিতে তাদেরকে জুতাপে’টা করে ছেড়ে দেয়া হয়। গৃহবধূর স্বামী বলেন, এই ঘটনার পর অ’সুস্থ স্ত্রী’কে

 

হাসপাতলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ধ’র্ষকরা বাধা দেন এবং ঘটনাটি অন্য কাউকে জানালে জানে মে’রে

ফেলার হু’মকি দেন। এ ঘটনায় এখন আম’রা নিরাপত্তাহীনতায় পুরো পরিবার। যেকোনো সময় আবারও

এই ধ’র্ষণকারীরা এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারে। এই ঘটনায় ধ’র্ষণকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি চাই।

 

ধ’র্ষণের শিকার গৃহবধূ বলেন, রাতের আঁধারে তারা ঘরে ঢুকে গলায় অ’স্ত্র ঠেকিয়ে জানে মে’রে ফেলার

হু’মকি দিয়ে পাশের রুমে নিয়ে ধ’র্ষণ করে। তাদের হাতে পায়ে ধরে মাফ চাইলেও রেহাই না দিয়ে তারা

নি’র্মমভাবে একের পর এক সবাই এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। লোকলজ্জার ভ’য়ে আত্মহ’ত্যা করার চেষ্টা করেছি।

 

কিন্তু সন্তান থাকায় নিজের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছি। এখন শুধু প্রশাসনের কাছে একটাই দাবি, ধ’র্ষকদের

আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি দেয়া হোক। সালিশি বৈঠকে অংশ নেয়া ওসমান গাজীর কাছে

জানতে চাইলে তিনি বৈঠকের কথা অস্বীকার করে বলেন, গণধ’র্ষণের ঘটনাটি আমাকে জানায়নি।

 

আমি সালিশি বৈঠক করিনি। যদি জানাতেন তাহলে সমাধান করে দিতাম। তবে এ বিষয়ে আমা’র

কাছে কোনো অ’ভিযোগও আসেনি। চাঁদপুর মডেল থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) নাসিম

উদ্দিন বলেন, এ ধরনের ঘটনার কথা শুনেছি। তবে কোনো অ’ভিযোগ পাইনি। অ’ভিযোগ পাওয়া গেলে

আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোনো ছাড় দেয়া হবে না।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 NewsTheme
Design BY jobbazarbd.com