জানা জরুরী : হালাল পশুর যে ৭টি অংশ খাওয়া ইসলামে হারাম

জানা জরুরী : হালাল পশুর যে ৭টি অংশ খাওয়া ইসলামে হারাম

ইস’লামে সাধারণত গৃহপালিত পশুর (ছাগল, গরু, মহিষ) ইত্যাদি মাংস খাওয়া মু’সলমানদের

জন্য হালাল করা হয়েছে। কিন্তু এই হালাল পশুর বেলাতেও কিছু বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

মানুষের স্বাস্থ্যেরযা তে না কোন ক্ষতি হয় সেই দিক বিবেচনা করে আল্লাহ তায়ালা হালাল

 

পশুর ৭টি অঙ্গ খাওয়া মু’সলমানদের জন্য হারাম করেছে। যেমন-

গরুর নাড়ি তথা রগ খাওয়া জায়েজ নয়। তবে ভুরি খাওয়া জায়েজ আছে। তবে ময়লা থেকে

পরিস্কার করে নেয়া আবশ্যক। আবার, মুরগীর নাড়ি থাকে, কিন্তু ভুরি বলতে কিছু থাকে কি না?

 

আমাদের জানা নেই। হালাল পশুর যে ৭টি অঙ্গ হারাম সেগুলো হলো-

১- প্রবাহিত র’ক্ত। ২-নর প্রা’ণীর পুং লি’ঙ্গ। ৩- অন্ডকোষ। ৪- মাদী প্রা’ণীর স্ত্রী’ লি’ঙ্গ।

৫- মাংসগ্রন্থি। ৬- মুত্রথলি। ৭-পিত্ত। এছাড়া বাকি সবই খাওয়া জায়েজ।

 

ফেসবুকে মা মেয়ের বাঁ’চার আ’কুতি ছিল সাজানো নাটক

গত তিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মা-মে’য়ের বাঁ’চার আকুতির লাইভের জের ধরে

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পু’লিশ হাজির হয় ধানমন্ডির মধুবাজারের স্বপ্ননীল ভবনের ৮ম তলার ফ্ল্যাটে।

ওই ফ্ল্যাটে বসবাসরত শাহিদা বেগম ফেসবুক লাইভে তার স্বামীর বি’রুদ্ধে নি’র্যাতন চালানোর

 

অ’ভিযোগ তোলেন। শাহিদার মে’য়েও তার বাবার বি’রুদ্ধে একই অ’ভিযোগ করেন।

পু’লিশের ধানমন্ডি জোনের অ’তিরিক্ত উপ-কমিশনার আব্দুল্লাহ হেল কাফী ঢাকা জে’লার

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট পাঠান মো. সাইদুজ্জামানকে সঙ্গে নিয়ে ওই ফ্ল্যাটে অ’ভিযান চালান।

 

প্রথম ফ্ল্যাটের দরজা খুলতে না চাইলে পু’লিশ দরজা ভেঙ্গে ফেলে। পরে আরেকটি কক্ষের

দরজা ভেঙ্গে পু’লিশ দেখতে পায় যে বিছানার ওপর শাহিদা বেগম বসে রয়েছেন।

শাহিদা বেগম জানান, তার স্বামীর ওপর প্রতিশোধ নিতে তিনি ফেসবুকে লাইভে মিথ্যা আকুতি

 

জানিয়েছেন। পুরো ঘটনাটি ছিল সাজানো। আবার মে’য়ে জানিয়েছেন, তার বাবা-মা’র মধ্যে

ডিভোর্স হলেও তারা একসাথে থাকেন। অ’তিরিক্ত উপ- কমিশনার আব্দুল্লাহ হেল কাফী বলেন,

ওই নারীর স্বামীর নাম হাক্কানী। তার স্বামী তার ওপর নি’র্যাতন চালায়। স্বামীর অ’ভিযোগ,

 

স্ত্রী’ তার ওপর নি’র্যাতন চালায়। উভ’য়ের কথা শুনে মনে হয়েছে, তাদের মধ্যে শারিরীক ও

মানসিক সমস্যা রয়েছে। স্ত্রী’ তার ওপর নি’র্যাতন চালায়। উভ’য়ের কথা শুনে মনে হয়েছে,

তাদের মধ্যে শারিরীক ও  মানসিক সমস্যা রয়েছে।  মানসিক সমস্যা রয়েছে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 NewsTheme
Design BY jobbazarbd.com