বাবা-মাসহ একই পরিবারের ৪ সদস্যের ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ

বাবা-মাসহ একই পরিবারের ৪ সদস্যের ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ

 

২ বছর আগে ঘরের ছোট ছে’লে সনাতন ধ’র্ম ত্যাগ করে ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেন। এবার একই পরিবারের

আরও ৩ জন সদস্য ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেছেন। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজে’লার পৌর শহরের ইকড়ছই

 

গ্রামের মো. সুলেমান হোসেন সৈকত (সুদীপ কর) ২০১৮ সালে সনাতন ধ’র্ম ত্যাগ করার ২ বছর পর তার বাবা-মা

ও বড়ভাই ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করলেন। শনিবার সকালে জগন্নাথপুর উপজে’লায় বিশিষ্ট আলেম আব্দুল লতিফ

চৌধুরী ফুলতলির (ফুলতলি সাহেব) দ্বিতীয় ছে’লে সাহেবজাদা মওলানা নজমুদ্দিন চৌধুরীর মাধ্যমে

 

 

পরিবারের বাকি সদস্যরা ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেন। এ সময় মো. সুলেমান হোসেন

সৈকতের বাবা কবিন্ড করের নাম রাখা হয় মো. ইব্রাহিম হোসেন, মায়ের নাম অনিতা রানী দাস থেকে

মোছা. রহিমা বিবি ও বড়ভাই রতন করের নাম রাখা হয় মো. ইসমাইল হোসেন।

 

পরিবার সূত্রে জানা যায়, জগন্নাথপুর উপজে’লার পৌর শহরে ইকড়ছই গ্রামের ব্যবসায়ী

কবিন্ড রায় বতর্মান মো. ইব্রাহিম হোসেনের ছোট ছে’লে সুলেমায় হোসেন সৈকত ২ বছর আগে সনাতন

ধ’র্ম ত্যাগ করে ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেন। ধ’র্মত্যাগ করা নিয়ে তার পরিবারের মধ্যে কোনো সমস্যা না থাকায়

 

পরিবারের সঙ্গেই থাকতেন সৈকত। তিনিই পরিবারে ইস’লামের বার্তা পৌঁছাতে শুরু করেন। প্রথম’দিকে তার

পরিবারের কোনো সদস্য রাজি না হলেও তার দীর্ঘ চেষ্টায় শুক্রবার তার পরিবারের সকল সদস্য রাজি হন

ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণের জন্য।

 

ওইদিন বিকেলেই সুলেমান হোসেন সৈকত তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সাহেবজাদা মওলানা নজমুদ্দিন

চৌধুরীর বাড়িতে গেলে তিনি তাদের শনিবার সকালে এসে ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করার কথা জানান। তার কথা

মতোই শনিবার সকালে সুলেমান হোসেন সৈকত তার বাবা-মা ও বড়ভাইকে নিয়ে মওলানা সাহেবের বাসায়

 

গেলে তিনি তাদের ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করান। মো. সুলেমান হোসেন সৈকত বলেন, আমি আমা’র বন্ধু ও বিভিন্ন

সময়ে মানুষের কাছ থেকে শুনেছি ইস’লাম ধ’র্ম শান্তির ধ’র্ম। পরবর্তীতে আমি এটি নিয়ে ভেবে দেখি এবং

 

নিজেও ইস’লাম ধ’র্ম স’ম্পর্কে পড়াশুনা করি। সেখান থেকেই ইস’লাম ধ’র্মের প্রতি

আমা’র ভালোবাসা তৈরি হয়। এজন্য আমি ২ বছর আগেই সনাতন ধ’র্ম ত্যাগ করে

ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করি। কিন্তু ধ’র্ম ত্যাগ করায় আমা’র পরিবার আমাকে দূরে ঠেলে দেয়নি।

 

আমি বাড়িতে থেকেই নামাজ, রোজা ও কোরআন তেলোওয়াত করেছি। পরবর্তীতে আমি তাদের ইস’লামের

বার্তা পৌঁছাতে থাকি। প্রথমে পরিবারের মানুষ রাজি না হলেও এক সময় তারা মেনে নেন।

মো. সুলেমান হোসেনের বাবা ইব্রাহিম হোসেন বলেন, আমা’র ছে’লে আগেই ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ

 

করেছে। তার মাধ্যমে আম’রাও এক সময় বুঝতে পারি ইস’লাম শান্তির ধ’র্ম। পরিবারের সবাই এখন

ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেছি। আম’রা আমাদের দোকানের নাম ‘সুদীপ টি স্টল’ থেকে ‘ফুলতলি রেস্ট্যুরেন্ট’

রেখেছি এবং মিলাদও পড়িয়েছি। আমাদেরকে সবাই খুব সুন্দর করে গ্রহণ করেছেন।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 NewsTheme
Design BY jobbazarbd.com