বেগম জিয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত সোমবার, যা বললেন আইনমন্ত্রী

বেগম জিয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত সোমবার, যা বললেন আইনমন্ত্রী

 

বি’এনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সা’জা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়ে সোমবার (৩১ আগস্ট)

আইনমন্ত্রীর মতামত জানা যেতে পারে। সাজা স্থগিতের মেয়াদ বৃ’দ্ধি ও বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি চেয়ে মঙ্গলবার

 

(০১ সেপ্টেম্বর) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করে বেগম জিয়ার পরিবার। এরপর আবেদনটির বিষয়ে মতামতের

জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। আইনমন্ত্রী জানিয়েছেন, সোমবার (৩১ আগস্ট) আবেদনটি তিনি

দেখবেন, এরপরই মতামত দেবেন। ফলে আইনমন্ত্রীর সোমবারের মতামতের দিকে তাকিয়ে রয়েছে

 

বি’এনপি ও তার আইনজীবীরা। যদিও বি’এনপির একটি সূত্র বলছে, সরকারের সবুজ সংকেতেই

বেগম জিয়ার পরিবার তার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানো ও বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার এই আবেদনটি

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছেন।

 

সূত্রটি আরো জানায়, এবারও বেগম জিয়ার পরিবারের সঙ্গে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের দেখা করার কথা ছিল। কিন্তু

এবার সেটি সম্ভব হয়নি। তবে বেগম খালেদা জিয়ার মু’ক্তি এবং সাজার স্থগিতাদেশের মেয়াদ বৃদ্ধির বিষয়ে যিনি

সরকার এবং বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের সঙ্গে মধ্যস্থতা করছেন তার সঙ্গে দুই দফা বৈ’ঠক হয়েছে বলে

 

জানা গেছে। মূলত সেই বৈ’ঠকের পরই সাজা স্থগিতাদেশের মেয়াদ বৃদ্ধি এবং বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার জন্য

সরকারের কাছে এই আবেদনটি জমা দিয়েছেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। তবে বেগম খালেদা জিয়ার স্থায়ী

মুক্তির আবেদন করার বিষয়ে সংবাদমাধ্যমে

 

যে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে, সেই রিপোর্টটি ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী

ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। তিনি বলছেন, তারা বেগম খালেদা জিয়ার সা’জা ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে

যে মুক্তি দেয়া হয়েছিল শুধুমাত্র সেই মুক্তির আদেশ বর্ধিত করার জন্যই এই আবেদনটি করা

 

হয়েছে। ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মা’মলায় বেগম জিয়াকে সাত বছরের কা’রাদণ্ড

দেন আ’দালত। এ সাজার বি’রুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করলে দশ বছরের কা’রাদণ্ড দেয়া হয় বি’এনপি নেত্রীকে।

এছাড়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মা’মলায় বেগম

 

জিয়ার সাত বছরের জে’ল হয়েছে। এ দুটি দু’র্নীতি মা’মলা ছাড়াও বেগম জি’য়ার বি’রুদ্ধে মোট পাঁচটি দু’র্নীতি

মা’মলা রয়েছে। এছাড়া না’শকতা, ভা’ঙচুর সরকারি কাজে বা’ধা দেয়াসহ মোট ৩৬টি মা’মলা রয়েছে বিএনপি

প্রধানের বি’রুদ্ধে। দ’ণ্ডিত হওয়ার পর নাজিম উদ্দীন রোডের পুরাতন কা’রাগারে রাখা হয় বেগম জিয়াকে।

 

পরে কেরানীগঞ্জের নতুন কা’রাগারে স্থানান্তরের কথা থাকলেও জা’মিনে মু’ক্তির আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব

মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। করোনা সং’ক্রমণের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে গেলো ২৫

 

মার্চ সা’জা স্থগিত করে ছয় মাসের জন্য মু’ক্তি পান বেগম জিয়া। সেই মেয়াদ শেষের আগেই সা”জা স্থ’গিত ও

জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর জন্য আবেদন করলো তার পরিবার। জন্য আবেদন করলো তার পরিবার।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 NewsTheme
Design BY jobbazarbd.com