সিএনজিতেই কাজ সারে অনেক খদ্দের!

সিএনজিতেই কাজ সারে অনেক খদ্দের!

রাজধানীর অন্যতম ব্যস্ততম এলাকার মধ্যে ফার্মগেট অন্যতম। দিনের বেলায় মানুষের পদচারণায়

মুখরিত থাকে এ এলাকা তাই দেখে হয়তো অনেক কিছুই বোঝা যায় না। কিন্তু রাতের নিরবতা যত বাড়ে,

ততই এই এলাকায় আনাগোনা বাড়ে দে’হ ব্যবসায়ীদের। খদ্দেরের খোঁ’জে বোরকা পড়ে অপেক্ষা করতে

 

দেখা যায় তাদের রাস্তার ধারে। গত শনিবার এবং রবিবার মধ্যরাতে সরেজমিনে ফার্মগেটে গিয়ে দেখা যায়,

খদ্দেরের খোঁ’জে বোরকা পড়ে এখানে-সেখানে অপেক্ষা করছেন প’তিতারা।

তাদের পাশেই সারি-সারি সিএনজি দাঁড়িয়ে আছে। খদ্দের এসে প্রথমে দামাদামি করে।

 

রপর চূড়ান্ত হলে নিয়ে যায় সিএনজি করে। তাদের মধ্যে অনেকেই সাধারণ মানুষকেও বির’ক্ত করে।

নিবি, লাগবে বলে বিভিন্ন ইশারা দেয় তারা। এতে অনেক পথচারীও বিড়ম্বনার মধ্যে পড়েন। সোহেল হাসান

নামের একজন পথচারী বলেন, ওরা সুযোগ বুঝে ইশারা দেয়, নানান রকম অ’শ্লীল কথাও বলে। সাংবাদিক

পরিচয় গো’পন রেখে কথা হয় নিতু নামের এক পতি’তার স’ঙ্গে।

 

সদ্য এ পথে পা বাড়িয়েছে বলে দাবি তার। কিশোরগঞ্জ জে’লার ভৈরবেবাড়ি বলে জানান নিতু। তিনি

বলেন, আমি যে এ পেশায় আছি তা আমার পরিবারের কেউই জানে না।

টাকার অ’ভাবেই এ পেশাই আসছি। এত পেশা থাকতে এ পেশায়আসলেন কেন, এমন প্রশ্নের জবাবে

 

কোনো উত্তরই দেননি তিনি। নিতু জানায়, আধাঘন্টার জন্য নিয়ে গেলে ৫০০ টাকা আর পুরো রাতের

জন্য নিয়ে গেলে ১ হাজার টাকা নেই। আমি রাতেই ফার্মগেটে আসি। হোটেলে বা খদ্দেরের বাসায় যেয়ে

কাজকরি। তার দাবি, খদ্দের অনেকসময় ৫০০ টাকার কথা বলে নিয়ে যায় কাজ শেষে ২০০ বা ৩০০

 

টাকা দেয়। প্রতিবা’দ করলেও লাভ হয়না। আবার মাঝেমধ্যে অনেকে আরও কমটাকাও দেয়। নিতুর

সাথে কথা বলে সামনে এগুতেই দেখা যায়, আরও চার প’তিতা একস’ঙ্গেই বসে আছেন। বিভিন্ন সিএনজি

তাদের সামনেই থামে, মাঝে-মধ্যে সিএনজি চালকদের সাথেও খোশগল্পে মাতে তারা।

 

 

জানা যায়, ফার্মগেটে সাধারণত প’তিতারা বিকেল থেকে সন্ধ্যা বা রাতেই আসে। কেউ কেউ আবার

মধ্যরাতেও বের হয়। সকালহলেই ফেরে ঘরে। শাহীন নামের একজন ভ্যনচালক বলেন, আমি এই

জায়গাতে ভ্যানচালাই গত চার বছর ধ’রে।

 

এদেরকে (প’তিতা) প্রতি রাতেই দেখি। ভোরে আবার চলে যায় তারা। তিনি বলেন, এদের সিএনজি

চালকও ঠিক করা থাকে। খদ্দের ঠিক হলেই সিএনজি করে চলে যায়। অনেকসময় সিএনজিতেই তারা এ

কাজ করে। নাম প্রকাশ্যে অ’নিচ্ছুক আরেক ভ্যানচালক বলেন, এদের মধ্যে কিছু প্র’তারকও থাকে।

 

 

তারা সিএনজিতে নিয়ে খদ্দেরকে প্র’তারণা করে, টাকা, মোবাইল ফোন ছিন’তাই করে। মান-স’ম্মানের

ভ’য়ে অনেকেই তা প্র’কাশ করে না। এ বি’ষয়ে জানতে চাইলে তেজগাঁও থা’নার ওসি বলেন, আমাদের

কাছে এরকম (ছিন’তাই) অ’ভিযোগ আসেনি। অ’ভিযোগ পেলে আম’রা ব্যবস্থা নেব।

 

প’তিতাদের অবস্থানের বি’ষয়ে তিনি বলেন, আগে অনেক অ’ভিযান চা’লানো হয়েছিল, এরপর আর

তাদের দেখা যায়নি। মধ্যখানে তারা আবার হয়তো এসেছে, আজ রাতেই আবার অ’ভিযান চালাবো।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 NewsTheme
Design BY jobbazarbd.com