ভেস্তে গেলো সরকার পতনের আরেকটি ষড়যন্ত্র

২৬ এবং ২৭ মা’র্চ দেশের বিভিন্ন স্থানে হেফাজত যে তা’ণ্ডব চালিয়েছিলো তা শুধুমাত্র ভারতের প্রধানমন্ত্রী

নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধীতা করার জন্য নয়। এর পেছনে সুগ’ভীর একটি রাজনৈতিক

 

দুরভিসন্ধি ছিলো। একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে বলা হয়েছে, মূল লক্ষ্য ছিলো এমন একটি প’রিস্থিতি সৃষ্টি

করা, যে প’রিস্থিতির মাধ্যমে সরকারের পতন হবে। অন্যান্য ষড়যন্ত্রের মতো এই ষড়যন্ত্র শেষ পর্যন্ত ভেস্তে

 

গেছে। একাধিক গোয়েন্দা সূত্র বলছে যে, সরকার পতনের এই নীলনকশাটি এসেছিলো লন্ডন থেকে।

হেফাজতকে সামনে রেখে বিএনপি এই ষড়যন্ত্র বাস্তবায়ন ক’রতে এবং দেশে এমন একটি প’রিস্থিতি তৈরি

 

ক’রতো যাতে তৃতীয় পক্ষ ক্ষ’মতা গ্রহণ করে। কিন্তু সরকারে দৃঢ়তা এবং হেফাজতের মধ্যে বিভক্তির

কারণে শেষ পর্যন্ত এই ষড়যন্ত্র বাস্তবায়িত হয় নি। অবশ্য রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছে, হ’ঠাৎ করে

 

করোনা প’রিস্থিতির অবনতিও সরকারের জন্য এক ধ’রনের আশীর্বাদ হয়েছে। এর ফলে বিএনপি

আন্দোলনের ক’র্মসূচি থেকে সরে এসেছে। গোয়েন্দা সূত্রগুলো বলছে, মূল প’রিকল্পনাটি ছিলো এরকম

 

যে, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী যেনো সফলভাবে না হয় এবং সুবর্ণজয়ন্তীতে একটি অঘটন ঘ’টিয়ে সরকারকে

অস্থিতিশীল করে তোলা। আর সেজন্যই তারা বেছে নিয়েছিলো নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে। ইস্যুটি

 

জনপ্রিয়, এ বিবেচনা থেকে তারা এই ইস্যুটিকে বেছে নিয়েছিলো। এই ষড়যন্ত্রের দুটি ভাগ ছিলো। প্রথম

ভাগ ছিলো তারা সরকারের সাথে এক ধ’রনের বিশ্বা’সঘাতকতা করবে। সরকার যেনো অপ্র’স্তুত থাকে

 

তারা সরকারকে আশ্বস্ত করবে যে নরেন্দ্র মোদির সফরে তারা তেমন কিছু করবে না। শুধুমাত্র

ঘরোয়াভাবে বিক্ষোভ করবে। সরকারের একটি মহল এই আশ্বা’সে বিশ্বা’স রেখেছিলো। আর দ্বিতীয়

 

প’রিকল্পনার অংশ ছিলো, সরকারকে অপ্র’স্তুত রেখে সারাদেশে তা’ণ্ডব চালাবে এবং একটি প’রিস্থিতি

তৈরি করা হবে, যে প’রিস্থিতির ফলে সরকার অস্থিতিশীল হয়ে প’ড়ে। দ্বিতীয় প’রিকল্পনার মধ্যে ছিলো যে,

 

হেফাজত তার নিয়ন্ত্রিত জে’লাগুলোতে ভ’য়ঙ্কর রকম স’ন্ত্রাস, তা’ণ্ডব চালিয়ে একটি অস্থিতিশীল

প’রিস্থিতি করবে। এরপর হেফাজতের পেছনে পেছনে বিএনপি এবং জামায়াত সারাদেশে বিশৃ’ঙ্খলা সৃষ্টি

 

করবে। আম’রা যদি ঘ’টনাগুলো বিশ্লেষণ করি তাহলে দেখবো যে, এই ষড়যন্ত্রের পুরোটাই তারা বাস্তবায়ন

করার জন্য চেষ্টা করেছিলো। প্রথমত হেফাজতের নেতারা সরকারের স’ঙ্গে যোগাযোগ করেছিলো এবং

 

তারা আশ্বস্ত করেছিলো যে, নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময় তারা বড় ধ’রনের কোনো ক’র্মসূচি

না। কিন্তু সরকারকে অপ্র’স্তুত করে এবং সরকার যখন নরেন্দ্র মোদি সহ ভিআইপিদের বাংলাদেশ সফর

 

নিয়ে ব্যস্ত সেই সময় তারা ২৬ মা’র্চে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর দিনে সারাদেশে তাদের নিয়ন্ত্রিত

এলাকাগুলোতে তা’ণ্ডব চালানোর চেষ্টা করে। ২৬ এবং ২৭ মা’র্চের এই তা’ণ্ডবের পরপর হ’ঠাৎ করেই

 

নিদ্রা ভঙ্গ হয় বিএনপির এবং বিএনপিও গা ঝাড়া দিয়ে ওঠে। চট্টগ্রাম, কিশোরগঞ্জ সহ দেশের বিভিন্ন

স্থানে বিএনপিও হেফাজতের কায়দায় স’ন্ত্রাসী তৎপরতা চালানোর চেষ্টা করে। কিন্তু হেফাজতের প্রথম

 

দুইদিনের ক’র্মকাণ্ডের পর হেফাজতের শিক্ষার্থীদের মধ্যে এক ধ’রনের আত’ঙ্ক এবং হ’তাশা তৈরি হয়।

তারা মনে করে যে তাদেরকে ব্যবহার করা হচ্ছে। পাশাপাশি হেফাজতের মধ্যেও এই ধ’রনের

ন্যক্কারজনক ঘ’টনা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে এবং কিছু আলেম সমাজে’র একটি অংশ জুনায়েদ বাবুনগরী এবং

 

মামুনুলদের এই তৎপরতার তীব্র বিরোধীতা করেন। একধিক হেফাজতের নেতা এই অব’স্থান থেকে সরে

আসেন এবং তারা কোনো গণ্ডগোল ক’রতে রাজি হন না। জা’না গেছে যে, শুধুমাত্র ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম

নয়, হেফাজতের নির্দে’শ ছিলো রংপুর, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে একই ধ’রনের নাশকতা তৈরি

 

করা। কিন্তু কিছু কিছু হেফাজতের নেতাদের শুভবুদ্ধির কারণে সেটি সম্ভব হয় নি। ফলে সারাদেশে

যেরকম প’রিস্থিতি তৈরি ক’রতে চেয়েছিলো হেফাজত, সেটি হয় নি। আবার বিএনপির যে এখন

 

আন্দোলন করার মতো শ’ক্তি নেই বা সেই রকম ক’র্মী সমর্থকও নেই সেটি প্রমাণ হলো। তারা চট্টগ্রামে

যেটি করেছিলো সেটি নেহাৎই একটি স’ন্ত্রাসবাদী তৎপরতা। কিশোরগঞ্জেও তারা কিছু করার চেষ্টা

করেছিলো খুব অল্প সংখ্যক লোক দিয়ে। ফলে যে নীলনকশা লন্ডন থেকে এসেছিলো তা অধ’রাই থেকে

 

যায়। উল্লেখ্য যে, এর আগেও সরকারকে বেকায়দায় ফেলা এবং সরকারকে অস্থিতিশীল করার জন্য লন্ডন

থেকে প্রেসক্রিপশন এসেছিলো। বিশেষ করে নি’রাপদ সড়ক আন্দোলনের সময় এই প্রেসক্রিপশনটি

নিয়ে বিএনপি কাজ করেছিলো। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বর্তমান ষড়যন্ত্রের মতো সেগুলোও ব্য’র্থ হয়ে যায়।

 

 

Check Also

আবারও সাবেক স্ত্রীর ”অপুর” সঙ্গে এক হচ্ছেন ”শাকিব খান”

সাবেক স্ত্রীর অপুর সঙ্গে আবারো এক হচ্ছেন ঢালিউড কিং শাকিব খান। গত বছরের শুরুতে ‘বীর’ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *