Breaking News

সব মাদ্রাসা ব’ন্ধ রাখার নির্দেশ

বিরাজমান করোনা পরিস্থিতিতে এতিমখানা ছাড়া দেশের সব কওমি মাদ্রাসা ব’ন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়ে

প্র’জ্ঞাপন জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) বিকেলে এই সিদ্ধান্ত জানানো হয়। তবে

 

ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির সুবিধার্থে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কওমি মাদ্রাসার অফিস খোলার

অনুমতি দেয়া হয়েছে। দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোতে প্রতিবছর রমজান মাসের পরপর নতুন শিক্ষার্থী

 

ভর্তি করা হয়ে থাকে। এ বছর শিক্ষার্থী ভর্তির কার্যক্রম অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে অফিস খোলার অনুমতি

চেয়ে কওমি মাদ্রাসাগুলোর পক্ষ থেকে ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর কাছে আবেদন করা হয়। প্রতিমন্ত্রী বিষয়টি

 

নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করেন এবং প্রধানমন্ত্রী মাদ্রাসাগুলোতে শিক্ষার্থী ভর্তির বিষয়টি

আন্তরিকতার সঙ্গে অনুধাবন করে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অফিস খোলা রাখার

অনুমতি দেন।

 

আরও পড়ুনঃ

পাহাড় কেটে কওমি মাদ্রাসা নির্মাণ, প্রায় কোটি টাকা জরিমানা এবার চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার

জালালাবাদ এলাকায় একটি কওমি মাদ্রাসা নির্মাণের জন্য পাহাড় কাটার অপরাধে এক মাদ্রাসা

পরিচালকের ৭৮ লাখ ৭ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদফতর। পরিবেশ

 

অধিদফতরের পরিচালক রুবিনা ফেরদৌস স্বাক্ষরিত একটি চিঠির মাধ্যমে এই জরিমানার কথা জানা

যায়। এদিকে অর্থদণ্ড পাওয়া মাদ্রাসা পরিচালকের নাম হাফেজ মো. তৈয়ব। তিনি হাটহাজারী উপজেলার

জালালাবাদ তালীমুল কুরআন মাদ্রাসার পরিচালক। তার বিরুদ্ধে জালালাবাদ আরেফিন নগরে চারটি

 

স্থানে সর্বমোট এক লাখ ৫৬ হাজার ১৫০ ঘনফুট পাহাড় কাটার প্রমাণ পেয়েছে পরিবেশ অধিদফতর।

আজ সোমবার দুপুরে জরিমানার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম মহানগরের

উপ-পরিচালক মিয়া মাহমুদুল হক। তিনি জানান, গত ৩১ মার্চ পরিবেশ অধিদপ্তরে এক শুনানি হয়।

 

শুনানিতে পাহাড় কাটার অপরাধে হাফেজ মো. তৈয়বকে ৭৮ লাখ ৭ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা

হয়েছে। পরিবেশ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মিয়া মাহমুদুল হক জানান, জরিমানা করা টাকা আগামী

১৫ এপ্রিলের মধ্যে পরিশোধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি যেসব পাহাড় কাটা হয়েছে সেগুলো পূর্বের

 

অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে অভিযুক্তকে তিন মাসের সময় দেয়া হয়েছে। অন্যথায় অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে

মামলা দায়ের করা হবে। জানা যায়, জালালাবাদ তালীমুল কুরআন মাদ্রাসায় হেফজখানা ও নুরানী বিভাগ

রয়েছে। মাদ্রাসাটিতে প্রায় ২৫০ জন শিক্ষার্থী পড়ালেখা করছে।

 

 

Check Also

একসঙ্গে মা-মেয়ের বিয়ে! বিস্তারিত জানুন

একসঙ্গে মা-মেয়ের বিয়ে! কারণ জানলে আপনিও সমর্থন জানাবেন! বয়স কেবল সংখ্যামাত্র। বিভিন্ন ক্ষেত্রেই এই কথাটি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *